top of page
Search

যীশু কিভাবে ঈশ্বরের মেষশাবক হয়ে জগতের সমস্ত পাপভার বহন করেছেন?



প্রিয়পাঠক, আমরা আস্তে আস্তে ঈশ্বরের একমাত্র পুত্র যীশুর ক্রুশীয় কোরবানির নিঘূর্তত্ত্বের অভিমুখে যাত্রাশুরু করছি। এই বিষয়ে আমার একটিমাত্র লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য আছে তা হচ্ছে, ক্রুশে হত, পুনরুন্থিত যীশুকে পরিত্রাতা হিসেবে পাপিদের সামনে তুলে ধরা যেন, প্রত্যেক পাপি আপন আপন পাপ থেকে মন পরিবর্তনের নিমিত্ত,নিজ পাপের  পরিত্রাণের জন্য ঈশ্বরের উদ্ধারজনক সুসমাচার বিশ্বাস করতে অনুপ্রাণিত হতে পারেন। তাই আসুন এখন আমরা পবিত্র বাইবেল থেকে যোহন ১:২৯ পদ পাঠ করি


"এই দেখ ঈশ্বরের মেষশাবক, যিনি জগতের পাপভার লইয়া যান" ( যোহন ১:২৯)


আজ থেকে প্রায় দশ বছর পূর্বে আমার একজন প্রিয় মুসলিম শিক্ষক ছিলেন। তিনি আমাকে দেখা হলেই বাইবেল এই পদ সম্পর্কে আমাকে তিরস্কার করে বলতেন, তোমরা মেষশাবক অর্থাৎ ভেড়ার বাচ্ছাকে ঈশ্বরের পুত্র বানিয়েছ! আমি তার প্রশ্নে অবাক হয়েছিলাম, এটি ভেবে যে, তিনি একজন মুসলিম ধর্মীয় পন্ডিত হয়েও কেন ঈশ্বর প্রদত্ত কোরবানি যীশুকে অস্বীকার করছেন এবং পশু কোরবানিতে আস্থাশীল হচ্ছেন!


আসলে ইসলাম ধর্মের কোরবানি, পাপের ক্ষমার বিকল্প উপায় নয়। এটি ঈশ্বরের উদ্দেশ্য উৎস্বর্গ করার অর্থে ব্যবহারিত হয়, কিন্তু ঈশ্বরের পুত্র যীশুর ক্রুশীয় কোরবানি পাপিদের পরিত্রাণজনক ঈশ্বরের উদ্ধার কাজের প্রেমের প্রকাশ। বাইবেলে প্রভু যীশুকে সরাসরি মাত্র দুবার মেষশাবক হিসাবে ডাকা হয়েছে। বাইবেল যদি আপনি দেখেন তবে মেষ শব্দ টি পুরাতন ও নতুন নিয়মের অনেক স্থানে পাবেন। যোহন ১: ২৯ পদ, প্রকাশিত বাক্য ৫-১৯ অধ্যায়ের মধ্যে বহু স্থানে, রোমিও পত্রের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন জায়গাতে আছে, মথি ২৬:৩১ পদ,  লুক ১২: ৩২ পদ,  প্রেরিত ২০:২৮ পদ, মার্ক ৬: ৩৪ পদ, আরো অনেক স্থানে মেষের বিষয়ে বলা হয়েছে। তাই কোরবানির বিষয়ে আলোচনার জন্য যেগুলো পদ প্রয়োজন সেগুলোকে লিপিবদ্ধ করাই শ্রেয়, তাই নয় কি?


পবিত্র বাইবেলে প্রকৃত পক্ষে ওল্ড চেষ্টামেন্টে মেষ তথা মেষশাবককে পবিত্র একটি প্রাণি হিসাবে দেখানো হয়েছে। যার জন্য আমরা বাইবেলের কিছু ঘটনাবলিতে মেষ বা মেষশাবকের কুরবানি  প্রদানের ঘটনা লক্ষ্য করে থাকি। উদাহরণ স্বরুপ অব্রাহামকে ঈশ্বরের দ্বারা পরীক্ষা , যেখানে ঈশ্বর ইসাহাকের বদলে মেষকে কুরবানি হিসাবে গ্রহণ করেছিলেন। যেটা রয়েছে আদিপুস্তকের ২২:১৩ পদে - তখন অব্রাহাম একটা মেষ দেখতে পেলেন। একটা ঝোপে তার শিং আটকে গেছে। সুতরাং অব্রাহাম সেই মেষটা ধরে এনে কুরবানি দিলেন। ঐ মেষটাই হল ঈশ্বরের জন্যে অব্রাহামের কুরবানি। আর রক্ষা পেল অব্রাহামের পুত্র ইসহাক। এটি আব্রাহামের পরীক্ষা ছিল।


এছাড়া যাত্রাপুস্তকে মোশির মিশর দেশ থেকে বের হয়ে আসার ঘটনাতেও মেষ কুরবানি দেবার ঘটনার উল্লেখ্য পাওয়া যায়। সুতরাং এটা পরিষ্কার ভাবে বোঝা সম্ভব মেষ বা মেষশাবক বাইবেলের মতে একাধারে যেমন পবিত্র প্রাণি তেমনি কুরবানি যোগ্য প্রানিও বটে।


পাপের জন্য মেষ শাবক কুরবানিঃ পবিত্র বাইবেলে কুরবানি প্রদত্ত প্রাণি হিসাবে শুধু মেষ নই, তার সাথে আরো বহু প্রাণীকে উল্লেখ্য করা হয়েছে যেমন, পায়রা, ষাঁড়, ছাগল ইত্যাদি। পবিত্র বাইবেলের ওল্ড টেষ্টামেন্টে পাপ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য বহু জায়গাতে মেষ শাবকের কুরবানি দেবার কথা উল্লেখ করা হয়েছে , তার মধ্যে একটি হল - লেবীয় ৫:১৬- ১৭ পদ , ১৬ নং পদে বলা হয়েছে- “যদি কোন ব্যক্তি পাপ করে এবং প্রভুর আজ্ঞাগুলির কোন একটি লঙঘন করে, এমনকি যদি সে তা না জেনে করে থাকে, সে দোষী সাব্যস্ত হবে এবং তার পাপের জন্য দাযী হবে।" ১৬- ১৭ নং পদে বলা হয়েছে- এইভাব পাপমোচনের নৈবেদ্যর মেষটি উৎসর্গ করে যাজক সেই লোকটিকে শুচি করবে এবং ঈশ্বর ঐ ব্যক্তিকে ক্ষমা করবেন। এছাড়া আরো বহু জায়গা যেমন লেবীয় ১৯:২২ পদে বলা হয়েছে “যাজক লোকটিকে শুচি করার জন্য পুরুষ মেষশাবকটিকে দোষার্থক নৈবেদ্য হিসেবে প্রভুর সামনে উৎসর্গ করে তার পাপের প্রাযশ্চিত্ত করবে। তারপর লোকটিকে তার কৃত পাপ সমুহের জন্য ক্ষমা করা হবে।" যেখানে পাপের প্রায়চিত্ত স্বরুপ মেষ বলি দেবার কথা বলা হয়েছে। সুতরাং বাইবেলের অল্ড টেষ্টামেন্ট মতে প্রভু যীশু আগমনের আগে পাপ মোচনের উপায় হিসাবে ঈশ্বর মানুষকে মেষশাবক কোরবানি দিবার আদেশ দিয়েছিলেন তবে সেই শাবকটি হওয়া চাই, ক্রুটি ও কলঙ্কহীন।


মেষশাবক হিসাবে যীশুঃ খ্রীষ্ট বিশ্বাসীদের মতে ঠিক একই ভাবে ঈশ্বর তার প্রীয় পুত্র যীশুকে সকল মানবজাতির পাপ মোচনের উদ্দেশ্যে কুরবানিদানের জন্য পৃথিবীতে পাঠান। যেমনটি আমরা দেখতে পাই যোহন লিখিত ১:২৯ পদে - "ঐ দেখ, ঈশ্বরের মেষশাবক, যিনি জগতের পাপভার বহন করে নিয়ে যান!" তাছাড়াও অবাক করার মত অনেক কিছুই রয়েছে বাইবেলে। প্রভু যীশু যে জন্ম গ্রহন করবেন এবং তাকে যে মানবজাতির পাপের ক্ষমার জন্য কোরবানি হতে হবে সেটা প্রভু যীশুর জন্মের প্রায় ৭০০ বছর আগেই বলা হয়েছে বাইবেলের পুরাতন নিয়মে প্রায় ৩০০ এর উপরে প্রভু যীশুর আগমনের উপর ভবিষ্যতবানি করা হয়েছিল। যার মধ্যে প্রভু যীশুকে কোরবানির মেষের সাথে তুলনা করে মানুষের পাপের জন্য কোরবানি প্রদত্ত মেষ হিসাবে বর্ননাও করা হয়েছে অনেক জায়গাতে। তার মধ্যে একটি হল ভাববাদী যিশাইয় লিখিত ৫৩:৫ পদ


"কিন্ত আমাদেরই ভুল কাজের জন্য তাকে হত হতে হয়েছিল। আমাদের পাপের জন্য সে ক্ষত-বিক্ষত হয়েছিল। আমাদের কাঙ্খিত শাস্তি সে পেয়েছিল। তার আঘাতের জন্য আমাদের আঘাত সেরে উঠেছিল।"


এছাড়াও ভাববাদী যিশাইয় লিখিত পুস্তকের ৫৩: ৭ পদে বলা হয়েছে - "তার সঙ্গে নিষ্ঠুর ব্যবহার করা হয়েছিল এবং সে আত্মসমর্পণ করেছিল। সে কখনও প্রতিবাদ করেনি। মেষকে যেমন হত্যার জন্য নিয়ে যাওয়া হলে সে নালিশ করে না তেমনি সেও চুপচাপ ছিল।মেষ যেমন তার পশম কাটার সময় কোন শব্দ করে না, সেও তেমনি তার মুখ খোলে নি।"


এছাড়াও বলা হয়েছে - আমরা সবাই ভ্রান্ত পথে গিয়েছিলাম তখন ঈশ্বর প্রভু আমাদের সব শাস্তি তাকে দিয়ে আমাদের পরিত্রাণ করলেন।


ক্রুশ বিদ্ধ প্রভু যীশুঃএছাড়াও প্রকাশিত বাক্য ৫: ৯ পদে এ বলা হয়েছে - "তাঁরা মেষশাবকের জন্য এক নতুন গীত গাইছিলেন:‘তুমি ঐ পুস্তকটি নেবার ও তার সীলমোহর ভাঙ্গার য়োগ্য, কারণ তুমি বলি হয়েছিলে; আর তোমার রক্ত দিয়ে সমস্ত উপজাতি, ভাষা, সম্প্রদায় ও জাতির মধ্য থেকে ঈশ্বরের উদ্দেশ্যে লোকদের কিনেছ৷" পূৰ্বে যেমন মানুষের পাপের জন্য একটি নিরিহ মেষ শাবককে বলি দেওয়া হত ,তেমনি প্রভু যীশুকেও আক্ষরিক অর্থে ক্রুশ বিদ্ধ হয়ে কোরবানি হতে হয়েছিল। আশা করি উপরোক্ত বাইবেলের আলোচনা থেকে এইটি পরিষ্কার ভাবে প্রমান করতে পেরেছি প্রভু যীশুকে কেন মেষ শাবকের সাথে তুলনা করা হয়েছিল।


এখন প্রশ্ন হচ্ছে যে খ্রীষ্টানরা কি পশু কুরবানি করে?পবিত্র বাইবেলের পুরাতন নিয়মে তো কোরবানির কথা বলছে। সেই বিষয়ে পরিস্কার তথ্য প্রমান রয়েছে পবিত্র বাইবেলের মধ্যে। পবিত্র বাইবেলের পুরাতন নিয়মে প্রভু যীশুর জন্মের আগের ঘটনাবলি ও যীশুর আগমনের ভবিষ্যতবানি গুলো রয়েছে , প্রভু যীশু জন্মের আগে মেষশাবক কুরবানির মাধ্যমে শুধুমাত্র একজনের পাপ কিছু সময়ের জন্য ক্ষমা করা সম্ভব ছিল। কিন্তু প্রভু যীশু জন্মের পর জগতের সমস্ত পাপের শাস্তি স্বরুপ প্রভু যীশুকে ক্রুশে বিদ্ধ হতে হয়। তাই পশুকুরবানির যে প্রথাটি ছিল তা সেখানেই পরিপূর্ণতা লাভ করে  সমাপ্ত হয়ে যায়। আর এই বিষয়ে বলা হয়েছে মথি লিখিত ৯: ১৩ পদে-


"বলিদান নয়, আমি চাই তোমরা দয়া করতে শেখ,’শাস্ত্রের এইকথার অর্থ কি তা বুঝে দেখ৷ কারণ সৎ ও ধার্মিক লোকদের নয়, পাপীদেরই আমি ডাকতে এসেছি৷"


এছাড়াও রয়েছে মার্ক লিখিত ১২ : ৩৩ পদে - "আর সমস্ত হৃদয়, সমস্ত শক্তি দিয়ে তাঁকে ভালবাসো এবং প্রতিবেশীকে নিজের মতো ভালবাসায় হচ্ছে সমস্ত রকম বলিদান ও উৎসর্গের থেকে অনেক ভাল৷"


এছাড়াও বলা হয়েছে ইব্রীয় পত্রের ৭:২৭ পদে- "তিনি অন্যান্য যাজকদের মতো নন৷ অন্যান্য যাজকদের মতো প্রতিদিন আগে নিজের পাপের জন্য ও পরে লোকদের পাপের জন্য কোরবানি উৎসর্গ করার তাঁর কোন প্রযোজন নেই, কারণ তিনি যখন নিজেকে কুরবানিরূপে একবার উৎসর্গ করেন তখনই তিনি সেই কাজ চিরকালের জন্য সম্পন্ন করেছেন৷"


মেষ শাবকঃ সবশেষে বলবো ঈশ্বরের প্রতি মন ফেরান কারন ঈশ্বর দয়াময় ও ক্ষমাশীল। যার প্রমান স্বরুপ ঈশ্বর তার একমাত্র পুত্রকে মানব জাতির পাপ থেকে পরিত্রাণের জন্য কুরবানি করেছেন।


'‘মেষশাবক, যিনি হত হইয়াছিলেন, তিনিই পরাক্রম ও ধন ও জ্ঞান ও শক্তি ও সমাদর ও গৌরব ও ধন্যবাদ, এই সকল গ্রহণ করিবার যোগ্য।’' (প্রকাশিত বাক্য ৫:১২ পদ)


খ্রীষ্টানদের জন্য ঈশ্বরের পুত্র যীশুই ক্রুশের উপরে কোরবানি হয়ে অনন্তকালের নিমিত্ত পরিত্রাণ সুনিশ্চিত করেছেন। কোন পশু কোরবানি আমাদের জন্য প্রযোজ্য নয়।

40 views0 comments

Comments


bottom of page